শচীন দেববর্মণ-এর ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ - সংবাদচিত্র ডটকম/songbadchitro.com
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২২ , ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
  1. প্রচ্ছদ
  2. বিনোদন স্মরনীয় বরনীয়
  3. শচীন দেববর্মণ-এর ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বিংশ শতাব্দীর প্রখ্যাত গায়ক, গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত-পরিচলক

শচীন দেববর্মণ-এর ৪৭তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

শচীন দেববর্মণ ওরফে আর. ডি বর্মণ -সংগৃহীত ছবি

‘তুমি এসেছিলে পরশু কাল কেন আসোনি
তুমি কি আমায় বন্ধু কাল ভালবাসনি।
নদী যদি হয়রে ভরাট কানায় কানায়
হয়ে গেলে শূন্য হঠাৎ তাকে কি মানায়।
তুমি কি আমায় বন্ধু কাল মনে রাখ নি
কাল কেন আসোনি কাল ভালবাসনি।
তুমি এসেছিলে পরশু কাল কেন আসোনি—’

কালজয়ী এই গানের রচয়িতার মৃত্যু বার্ষিকী আজ। তিনি শচীন দেববর্মণ ওরফে এস. ডি বর্মণ।
শচীন দেববর্মণ ১৯৭৫ সালে প্যারালিটিক স্ট্রোক হয়ে পাঁচ মাস কোমায় থাকা অবস্থায় একই বছরের ৩১ অক্টোবর পরলোক গমন করেন।
তিনি ছিলেন বিংশ শতাব্দীতে ভারতীয় বাংলা গানের কিংবদন্তিতূল্য ও জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী। প্রায়শ তাঁকে এস্ִ ডি বর্মণ হিসাবেই উল্লেখ করা হয়। কিছুটা অনুনাসিক কণ্ঠস্বরের জন্য তিনি তাঁর শ্রোতাদের কাছে বিশেষভাবে পরিচিত।

গত প্রায় একশত বৎসরেও বাংলা গানের শ্রোতাদের কাছে তাঁর কালোত্তীর্ণ গানের আবেদন কিছুমাত্র লঘু হয়নি। কেবল সঙ্গীতশিল্পী হিসাবে নয়, গীতিকার হিসাবেও তিনি সার্থক।
তিনি বিভিন্ন চলচ্চিত্রে সঙ্গীত পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেছেন। তাঁর পুত্র রাহুল দেববর্মণ ভারতের বিখ্যাত সঙ্গীত পরিচালক এবং সুরকার ছিলেন। তাঁর ছাত্রী এবং পরবর্তীতে সহধর্মিনী মীরা দেববর্মণ গীতিকার হিসাবে খ্যাতি অর্জন করেন।

১৯০৬ সালের ১লা অক্টোবর তাঁর জন্ম কুমিল্লায়, ত্রিপুরার চন্দ্রবংশীয় মানিক্য রাজপরিবারের সন্তান। বাবা নবদ্বীপচন্দ্র দেববর্মণের কাছে সঙ্গীত শিক্ষা শুরু করেন। তৎকালীন ত্রিপুরার অন্তর্গত কুমিল্লার রাজপরিবারের নয় সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন অন্যতম। মা মণিপুরি রাজবংশের মেয়ে নিরুপমা দেবী।

১৯২০ সালে কুমিল্লা জেলা স্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করে ভিক্টোরিয়া কলেজে ভর্তি হন। ১৯২২ সালে ঐ কলেজ থেকে আইএ পাস করেন। খ্রিস্টাব্দে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজে বিএ ক্লাসে ভর্তি হন। ১৯২৪ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে এমএ তে ভর্তি হন। ১৯৪৪ খ্রিস্টাব্দ থেকে স্থায়ীভাবে মুম্বাইয়ে বসবাস করতে শুরু করেন ছোটবেলা থেকে সঙ্গীতের প্রতি অনুরাগী ছিলেন।

১৯২৩ সালে আকাশবাণী কলকাতা কেন্দ্রে তিনি প্রথম গান করেন। ১৯৩১ সালে পিতা নবদ্বীপচন্দ্র কলকাতায় দেহত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তিনি ছিলেন ত্রিপুরার প্রধানমন্ত্রী। শচীন দেব তখন থাকতেন কলকাতার ত্রিপুরা প্যালেসে।

নিজের লেখা সরগমের নিখাদ নামক আত্মজীবনীতে শচীন দেববর্মণ স্বয়ং লিখেছেন-
“পিতার মৃত্যুর পর আমি যেন অগাধ জলে পড়ে গেলাম। এই অবস্থায় আমি আগরতলা বা কুমিল্লা গিয়ে থাকলে রাজকীয় আরামে ও নিশ্চিন্তে নিজেদের বাড়িতে বাস করতে পারতাম এবং রাজ্য সরকারের কোনো উচ্চপদে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারতাম। আমার বড় ভাইরা আমাকে তাই করতে বললেন। আমার কিন্তু এ ব্যবস্থা মনঃপূত হলো না। নিজে একলা সংগ্রাম করে, নিজে উপার্জন করে সঙ্গীত সাধনায় জীবন কাটিয়ে দেব। মনের মধ্যে একমাত্র এই আকাঙ্ক্ষা নিয়ে কলকাতার ত্রিপুরা প্রাসাদ ছেড়ে ভাড়া করা সামান্য একখানা ঘরে আমার আস্তানা বাঁধলাম।”

১৯৩২ সালে তিনি অডিশনে ফেল করলেন ভারতের রেকর্ড প্রস্তুতকারী শীর্ষ প্রতিষ্ঠান এইচএমভিতে। তবে সে একই বছর তার প্রথম গ্রামোফোন রেকর্ড বের হয় হিন্দুস্তান মিউজিক্যাল প্রোডাক্টস থেকে শচীন দেবের প্রথম রেকর্ডকৃত দুটি গান হল পল্লীগীতির ঢঙে গাওয়া “ডাকিলে কোকিল রোজ বিহানে” যার গীতিকার হেমেন্দ্র কুমার রায় এবং খাম্বাজ ঠুমরি অঙ্গের রাগপ্রধান “এ পথে আজ এসো প্রিয়” যার গীতিকার শৈলেন রায়। ১৯৩০-এর দশকে তিনি রেডিওতে পল্লীগীতি গেয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। পূর্ব বাংলা এবং উত্তর-পূর্ব বাংলার পল্লীগীতির উপর তাঁর বিশেষ ঝোঁক ছিল।

১৯৩৪ সালে অল ইন্ডিয়ান মিউজিক কনফারেন্সে তিনি গান গেয়ে সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। ১৯৩৫ সালে বেঙ্গল মিউজিক কনফারেন্সে ঠুমরি পেশ করে ওস্তাদ ফৈয়াজ খাঁকে মুগ্ধ করেছিলেন। শেখ ভানুর রচনা ‘নিশিথে যাইয়ো ফুলবনে’ দেহ ও সাধনতত্ত্বের গানটিকে প্রেমের গানে রূপান্তর করলেন কবি জসীমউদ্দীনকে দিয়ে এবং রূপান্তরিত এই গানটি রেকর্ড করলেন ১৯৩৫ সালে।

১৯৩৭ এ মীরা ধরকে বিয়ে করেন। মীরা ধর ছিলেন তার সঙ্গীত জীবনের বিশ্বস্ত সঙ্গী। বাংলা গানের জগতে মীরা ধর তথা মীরা দেববর্মণ অন্যতম সার্থক গীতিকার।
তাঁর লেখা গানের মধ্যে আছে
নিশীথে যাইও ফুলবনে (পল্লিগীতি), শোন গো দখিন হাওয়া, বিরহ বড় ভাল লাগে, সুবল রে বল বল, বর্ণে গন্ধে ছন্দে গীতিতে, কে যাস রে ভাটি গাঙ বাইয়া এবং ১৯৭১ সালে লেখা ‘তাকদুম তাকদুম বাজাই বাংলাদেশের ঢোল’।

শচীন দেববর্মণ ১৯৫৮ খ্রিস্টাব্দে ভারতের সঙ্গীতে নাটক একাডেমি এবং এশিয়ান ফিল্ম সোসাইটি লন্ডন থেকে সম্মাননা লাভ করেন। ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে ভারত সরকার হতে পদ্মশ্রী খেতাব লাভ করেন।

সংবাদচিত্র ডটকম/সঙ্গীত

শেয়ার করুনঃ

এখন থেকে বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম নির্ধারণ করবে সরকার

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৭

৭ বছর পর বাংলাদেশে ভারতীয় ক্রিকেট দল

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪৫

গ্রামের প্রতিটি ঘরে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে হবে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৪২

রসিক নির্বাচন: ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৩৮

দেশে সাড়ে ১৩ হাজারেরও বেশি মানুষ এইডসে আক্রান্ত

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৩৪

আইএসের শীর্ষ নেতা নিহত

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:৩১

গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দামের বিষয়ে যাচাই-বাছাই করে সিদ্ধান্ত : প্রতিমন্ত্রী

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:২৮

টর্চার সহ্য করার মতো না, সংসারজীবনে আমি অতিষ্ঠ : সারিকা

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:২২

বিশ্ব এইডস দিবস আজ

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৮:০৬

পাকিস্তানে কয়লাখনিতে বিস্ফোরণে নিহত ৯ শ্রমিক

১ ডিসেম্বর, ২০২২, ৭:৪৫

বিয়ের প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেফতার

৮ মে, ২০২১, ৪:৫৩

চেলসির সঙ্গে ড্র, ফাইনালের পথ কঠিন হলো রিয়ালের

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫৩

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে দিল্লিকে হারিয়ে শীর্ষে কোহলিরা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫১

খাদ্যের সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতেও কাজ হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

২২ মে, ২০২১, ১০:০৭

আরও ২/৩ দিন হাসপাতালে থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৩

ফের পিএসএলে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ, দল পেলেন লিটনও

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫২

অর্থকষ্টে পড়েই মহামারীর মধ্যে শুটিং করেছেন শ্রুতি!

১১ মে, ২০২১, ৮:০০

রাজধানীর নবাবগঞ্জে বাস ডিপোতে আগুন

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৫

পপ সম্রাটের বিরদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রত্যাখান

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪০

গবেষণা বলছে, ইঁদুরকেও সংক্রমিত করতে পারে করোনাভাইরাস

২২ মে, ২০২১, ১০:৫৭


উপরে