লকডাউন শিথিলতার সুযোগ নিলেই মহাবিপদ - সংবাদচিত্র ডটকম/songbadchitro.com
সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪ , ৩ আষাঢ় ১৪৩১
  1. প্রচ্ছদ
  2. স্বাস্থ্য করোনা
  3. লকডাউন শিথিলতার সুযোগ নিলেই মহাবিপদ

লকডাউন শিথিলতার সুযোগ নিলেই মহাবিপদ

প্রতিদিনই পূর্বের দিনের আক্রান্ত ও মৃত্যুর রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ছে করোনা ভাইরাস। সংক্রমণের এই উচ্চ হার অব্যাহত থাকলেও জীবন-জীবিকার কথা মাথায় রেখে ছাড় দিয়েছে সরকার। সেই ছাড়কে যদি নিজেদের ‘সুযোগ’ ভেবে বেশি বেশি বাইরে ঘোরাফেরা আর মেলামেশা করা হয় তাহলে আরও বড় বিপদের আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

মানুষের জীবন-জীবিকার কথা বিবেচনা করে সরকারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানালেও কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বানও জানিয়েছেন তারা। বিশেষজ্ঞদের মতে, একটু বেখেয়ালি মনোভাব নিজের ও পরিবারের সদস্য জন্য বড় ঝুঁকি ডেকে আনতে পারে।

আগামী ২১ জুলাই ঈদুল আজহা। মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম বড় উৎসব। ঈদ উপলক্ষে গ্রাম থেকে শহরে আসতে শুরু করবে কোরবানি পশু। শহরের এক হাট থেকে অন্য হাটে পশু কেনার জন্য ছুটে চলবে মানুষ। কারণ দীর্ঘদিন কঠোর লকডাউন থাকায় সকল শ্রেণির মানুষের জীবনে চরম অনিশ্চয়তা নেমে এসেছে। মানুষের জীবন-জীবিকার কথা চিন্তা করেই সরকার আগামী ১৫ জুলাই থেকে ২২ জুলাই অর্থাৎ ৮ দিনের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। এই সময়ে চলবে গণপরিবহন, ট্রেন এবং খোলা থাকবে শপিং মল। এরপর ২৩ জুলাই থেকে আবারো কঠোর বিধিনিষেধ জারি করবে সরকার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যারা গ্রামে যাচ্ছেন তাদের প্রত্যেককেই নিজের জীবনের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে সর্বোচ্চ সুরক্ষা মেনে চলা উচিত। সরকারের শিথিলতাকে সুযোগ না ভেবে জীবন-জীবিকার কথা বিবেচনায় নিয়ে শপিংমল, হাটে বাজারে গণপরিবহনে চলাচলে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা উচিত। কারণ শহর গ্রাম কোথাও নিরাপদ নয়। করোনার এই উচ্চ সংক্রমণ হার কমার একমাত্র উপায় মানুষকে পরিপূর্ণভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। আর সেই সঙ্গে যারা ঈদে বাড়ি যাচ্ছেন তাদের ফিরতি যাত্রা মাথায় রেখেই যেতে হবে। কারণ ঈদের পরে ফেরার জন্য একদিন সময় পাওয়া যাবে।

করোনা সংক্রমণের উচ্চ হার ও ঈদের বিধিনিষেধ শিথিলতা নিয়ে রোগতত্ত্ববিদ এবং জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, শহর গ্রাম কোথাও নিরাপদ না। কোথাও নিরাপত্তা দেওয়া নেই যে ওখানে গেলে করোনা হবে না। আমরা যতবেশি চলাফেরা করব, যত শপিংমলে যাব, যত স্বাস্থ্যবিধি কম মানব তত সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা থাকবে।

তিনি আরো যোগ করে বলেন, সরকারকে অনেক সময় সিদ্ধান্ত নিতে হয় জীবিকার কথা চিন্তা করে, সাধারণ জনগোষ্ঠীর কথা চিন্তা করে। সরকারের শিথিলতার কারণ এই নয় যে সংক্রমণ যাতে বাড়ে। সরকার এই জন্য শিথিল করে যাতে জীবিকাটা নিশ্চিত করা যায়। বরং স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকারকে সহযোগিতা করা আমাদের দায়িত্ব।

স্বাস্থ্যবিধি না মানলে ঈদের পর সংক্রমণের বাড়ার শঙ্কার কথা জানিয়ে মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, আমাদের যেখানে প্রয়োজন নেই- যদি সেখানে যাই বা কাজ করি তাহলে অবশ্যই সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা থাকবে। আমাদের যত্নবান থাকতে হবে। সরকার সুযোগ দিয়েছে জীবিকার জন্য; সেটাকে যেন আমরা জীবনের সাথে সমঝোতা না করি। স্বাস্থ্যবিধি মানা, সামাজিক দূরত্ব মানা এবং যে কাজ দরকার নেই তা এড়িয়ে যেটা শুধু জীবিকার জন্য তার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলে করোনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

করোনার বর্তমান সংক্রমণ হার কমার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা এ বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করে। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানি। আমরা যদি ফুল টাইম মাস্ক পরে থাকতাম তাহলে হয়তো লকডাউনে যাওয়ার প্রয়োজনই হত না।

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট টিবি হাসপাতাল (শ্যামলী, ঢাকা) সহকারি পরিচালক ডা. আয়শা আক্তার শিল্পী বলেন, শহরের চাইতে গ্রাম একটু নিরাপদ। কারণ শহরের তুলনায় গ্রামে মানুষের ঘনত্ব কম। গ্রামের বাড়িগুলো একটু দূরে দূরে থাকে। ঢাকায় জনসংখ্যার ঘনত্ব বেশি। গ্রামে বাড়িগুলোর মধ্যে দূরত্ব থাকার কারণে কিছুটা হলেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কাটা কম থাকে। কিন্তু ঈদে আবার ঢাকার বাইরে যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে তাই যাত্রাপথে ভাইরাস নিয়ে বাড়িতে গেলে সেখানেও ঝুঁকি বাড়বে। এর উদাহরণ তো গত ঈদুল ফিতরের পরেই দেখতে পাচ্ছি। শহর থেকে গাদাগাদি করে মানুষ গ্রামে যাওয়ায় ইতিমধ্যে করোনার ডেল্টা ধরণ বিভিন্ন জেলায় ছড়িয়ে পড়েছে। যা এখন সারাদেশেই ছড়িয়ে পড়েছে।

তাই প্রত্যেককে নিজের সুরক্ষার কথা আগে চিন্তা করতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে করোনা প্রতিরোধ করা সম্ভব। আমরা যদি নিজেকে নিজে সুরক্ষিত রাখতে পারি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি মাস্ক পরে থাকি দূরত্ব বজায় রেখে চলি তাহলে করোনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব- বলেন এই চিকিৎসক।

ডা. আয়েশা আক্তার বলেন, নির্দেশনা দেওয়া আছে আসন ফাঁকা রেখে গণপরিবহন চালাতে পারবে। আবার শপিংমল, হাট বাজারেও দূরত্ব রেখে খোলার কথা বলা হয়েছে। এগুলো মেনে চললে সমস্যা নেই। আর স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চললে করোনা কমার কোন সম্ভবনা নেই। বিধিনিষেধ না মানলে ঝুঁকি আরও বাড়বে।

সংবাদচিত্র/ডিএস/এফবি/আরএস

শেয়ার করুনঃ

ঈদের দিন রাজধানীর যেসব সড়ক বন্ধ থাকবে

১৬ জুন, ২০২৪, ৮:৫১

দেশবাসীকে রাষ্ট্রপতির ঈদ শুভেচ্ছা

১৬ জুন, ২০২৪, ৮:৪৪

দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

১৬ জুন, ২০২৪, ৮:৩৯

শয়তানকে পাথর মেরে শেষ হলো হজের আনুষ্ঠানিকতা

১৬ জুন, ২০২৪, ৮:৩০

‘লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফাত ময়দান

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:৩৬

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর নতুন প্রেস সচিবের শ্রদ্ধা

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:৩৩

হজের নিয়ম লঙ্ঘনের দায়ের গ্রেপ্তার ১৮

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:২৯

ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:২৪

ফের দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট রামাফোসা

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:১৯

অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেলেন ৭ চিকিৎসক

১৫ জুন, ২০২৪, ৪:১৫

বিয়ের প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেফতার

৮ মে, ২০২১, ৪:৫৩

চেলসির সঙ্গে ড্র, ফাইনালের পথ কঠিন হলো রিয়ালের

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫৩

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে দিল্লিকে হারিয়ে শীর্ষে কোহলিরা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫১

আরও ২/৩ দিন হাসপাতালে থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৩

খাদ্যের সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতেও কাজ হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

২২ মে, ২০২১, ১০:০৭

পপ সম্রাটের বিরদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ প্রত্যাখান

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪০

ইউনেসকোর প্রেস ফ্রিডম পুরস্কার জিতলেন মারিয়া রেসা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৮

দিরাইয়ে বজ্রপাতে দুই সহোদরের মৃত্যু, আহত ৩

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৭

রাজধানীতে অভিযানে গ্রেফতার ৩০

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৬

ওবায়দুল কাদের আপনি রেহাই পাবেন না: কাদের মির্জা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৩


উপরে