করোনাকালে বেড়েছে বন্য প্রাণী হত্যা - সংবাদচিত্র ডটকম/songbadchitro.com
বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ , ২৫ মাঘ ১৪২৯
  1. প্রচ্ছদ
  2. বিশেষ সংবাদ
  3. করোনাকালে বেড়েছে বন্য প্রাণী হত্যা

করোনাকালে বেড়েছে বন্য প্রাণী হত্যা

করোনা মহামারির সময় লকডাউনসহ নানা কারণে প্রকৃতিতে মানুষের হস্তক্ষেপ কমছে। ফলে বিশ্বের অনেক দেশের জীববৈচিত্র্যে নতুন প্রাণ ফিরেছে। কিন্তু বাংলাদেশে এর উল্টো চিত্রও দেখা যাচ্ছে। করোনার এ সময়ে দেশে বন্য প্রাণী হত্যা তুলনামূলক বেড়েছে। এমন এক পরিস্থিতির মধ্যেই আজ শনিবার বিশ্বজুড়ে পালন করা হচ্ছে বিশ্ব জীববৈচিত্র্য দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘টিকে থাকতে প্রকৃতির অপরিহার্যতা’।
করোনাকালে বেড়েছে বন্য প্রাণী হত্যা

বন বিভাগের তথ্য বলছে, দেশে গত ১৪ মাসে তিনটি বাঘ হত্যা করা হয়েছে। ডাঙার সবচেয়ে বড় প্রাণী হাতি হত্যার ক্ষেত্রেও গত এক বছরে নতুন রেকর্ড তৈরি হয়েছে। পানির সবচেয়ে বড় প্রাণী তিমির মৃত্যুর ক্ষেত্রে করোনার বছরটি সবচেয়ে ভয়াবহ বলেই ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া অন্যান্য বন্য প্রাণী হত্যা ও পাচারও তুলনামূলক বেড়েছে এ সময়ে। করোনাকালে বিপন্ন হয়েছে দেশের পাহাড়গুলোও।

বন বিভাগ এবং বন্য প্রাণীবিষয়ক সংস্থাগুলোর তথ্যমতে, ২০১৭ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দেশের জাতীয় প্রাণী বাঘ হত্যা প্রায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু গত বছরের মার্চ থেকে এ পর্যন্ত করোনার এ সময়ে বেঙ্গল টাইগার মারা গেছে দুটি। এর বাইরে গত বছর দুটি বাঘ ফাঁদে আটকা পড়ে আহত অবস্থায় মারা যায়। আর চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাগেরহাটে একটি বাঘের চামড়া, অঙ্গপ্রত্যঙ্গসহ একজন পাচারকারীকে আটক করে বন বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অর্থাৎ গত ১৪ মাসে হত্যার শিকার হয়েছে তিনটি বাঘ।
আয়েশে বসে হাই তুলছে বাঘ
আয়েশে বসে হাই তুলছে বাঘপ্রথম আলো ফাইল ছবি

সংসদে সরকারি দলের একজন সাংসদের দেওয়া প্রশ্নের জবাবে গত সেপ্টেম্বরে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী মো. শাহাবউদ্দিন বলেছেন, গত ২৪ বছরে মোট ২৪টি বাঘকে গুলি করে ও পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। আর ১০টি বাঘের স্বাভাবিক মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে। অর্থাৎ প্রতিবছর গড়ে একটি করে বাঘ হত্যার শিকার হচ্ছে।

বন বিভাগ এবং আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংস্থা আইইউসিএনের তথ্যমতে, গত এক বছরে দেশে মোট ১২টি হাতি হত্যার শিকার হয়েছে। বেশির ভাগ হাতিকে হত্যা করা হয়েছে বৈদ্যুতিক ফাঁদ পেতে ও গুলি করে। অথচ ২০১৩ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সময়ে দেশে গড়ে বছরে চার থেকে পাঁচটি হাতি হত্যার শিকার হয়েছে।
চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার চাকফিরানী গ্রামের পাহাড়ি এলাকা দক্ষিণের ঘোনায় উদ্ধার হওয়া মৃত হাতি।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রোহিঙ্গা শিবিরের কারণে কক্সবাজারের টেকনাফের সংরক্ষিত বনের এক পাশে ৪৪টি হাতি আটকে আছে। শিবিরগুলো এশীয় বন্য হাতির চলাচলের প্রধান পথে পড়েছে। ফলে আটকে পড়া হাতিগুলো ঘুরপথে মানুষের বসতি এলাকার দিকে যাচ্ছে। খাদ্যসংকটে পড়ায় তারা মানুষের ফসলি জমিতে ঢুকে পড়ছে। মানুষ ফসল ও বসতভিটা রক্ষায় হাতি হত্যা করছে।

এ ব্যাপারে আইইউসিএন বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর রাকিবুল আমীন প্রথম আলোকে বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরের ভেতর দিয়ে হাতির যাওয়ার একটি করিডর তৈরির পাশাপাশি দেশে হাতির বিচরণের অন্য পথগুলো সুরক্ষিত করতে হবে। নয়তো দেশে টিকে থাকা ২৬৩টি হাতি আরও বিপন্ন হয়ে পড়বে।
কক্সবাজারের হিমছড়ি সৈকতে ভেসে আসা মৃত তিমি
কক্সবাজারের হিমছড়ি সৈকতে ভেসে আসা মৃত তিমিফাইল ছবি প্রথম আলো

আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর তথ্যমতে, দেশের উপকূলে করোনার আগের ১৪ বছরে ১০টি তিমির মৃত্যুর তথ্য জানা গেছে। সেখানে গত এক বছরে উপকূলে ভেসে এসেছে চারটি তিমির মৃতদেহ।

বন্য প্রাণীবিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটি (ডব্লিউসিএস) বাংলাদেশের হিসাব বলছে, গত বছরের মার্চ থেকে চলতি বছরের মে পর্যন্ত দেশে ২০টি ডলফিন মারা গেছে। অথচ ২০১৯ সালে ১০টি, ২০১৮ সালে ১৪টি ও ২০১৭ সালে চারটি ডলফিন মারা গেছে। এ হিসাব অবশ্য যেসব ডলফিনের মৃতদেহ সাগরের সৈকতে ও নদীর তীরে ভেসে এসেছে, তার সংখ্যার ভিত্তিতে দাঁড় করানো হয়েছে।

দেশের বন্য প্রাণী হত্যা, পাচারসহ এ বিষয়ে অপরাধ দমনে বন বিভাগের একটি বন্য প্রাণী অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ইউনিট আছে। সেখানকার হিসাবেও করোনাকালে দেশের অন্যান্য বন্য প্রাণী যেমন পাখি, বনরুই, গন্ধগোকুল, তক্ষক, বনবিড়ালসহ নানা প্রজাতির প্রাণী হত্যা ও পাচারের শিকার হয়েছে।

শেয়ার করুনঃ

‘দাগা’ নিয়ে ফিরছেন ধ্রুব গুহ

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:২২

তুরস্ক-সিরিয়ায় মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়িয়েছে

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:১৫

৫ অপারেটরের কাছে সরকারের বকেয়া ১৩ হাজার কোটি টাকা

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:১২

ক্ষতিগ্রস্ত ১০ প্রদেশে জরুরি অবস্থা জারি করলেন এরদোয়ান

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:১০

বিধ্বস্ত তুরস্কে ত্রাণ সহায়তা পাঠালো ভারত

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০২

ঢাকা চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আগুন

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৯:০০

এইচএসসি-সমমানের ফল বুধবার

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৫৬

ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে ভিডিও-ভয়েস মেসেজ পাঠাচ্ছে মানুষ

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৫৪

ফের স্বামীর ঘরে ফিরলেন অভিনেত্রী সারিকা

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৫০

নাটকীয় জয়ে ভারতকে বিপদে ফেলে ফাইনালে নেপাল

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ৮:৪৬

বিয়ের প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেফতার

৮ মে, ২০২১, ৪:৫৩

চেলসির সঙ্গে ড্র, ফাইনালের পথ কঠিন হলো রিয়ালের

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫৩

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে দিল্লিকে হারিয়ে শীর্ষে কোহলিরা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫১

খাদ্যের সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতেও কাজ হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

২২ মে, ২০২১, ১০:০৭

আরও ২/৩ দিন হাসপাতালে থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৩

দিরাইয়ে বজ্রপাতে দুই সহোদরের মৃত্যু, আহত ৩

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৭

রাজধানীতে অভিযানে গ্রেফতার ৩০

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৬

ওবায়দুল কাদের আপনি রেহাই পাবেন না: কাদের মির্জা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৩

নিম একটি শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধের উৎস

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩২

ফের পিএসএলে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ, দল পেলেন লিটনও

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫২


উপরে