আজ বিশ্ব বাঘ দিবস - সংবাদচিত্র ডটকম/songbadchitro.com
শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২ , ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯
  1. প্রচ্ছদ
  2. জাতীয়
  3. আজ বিশ্ব বাঘ দিবস

আজ বিশ্ব বাঘ দিবস

বিশ্ব বাঘ দিবস আজ। প্রতিবছরের ২৯ জুলাই বিশ্ব বাঘ দিবস পালন করা হয়। ২০১০ সালে সেন্ট পিটার্সবার্গে অনুষ্ঠিত বাঘ অভিবর্তনে এই দিবসটির সূচনা হয়। পুরো বিশ্বজুড়ে দিবসটি পালন করা হলেও বাংলাদেশ, ভারত, নেপালসহ ১৩টি দেশে বাঘের ঘনত্ব বেশি থাকায় এসব দেশে গুরুত্ব সহকারে দিবসটি পালিত হয়।

দিবসটির এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘বাঘ বাঁচাবে সুন্দরবন, সুন্দরবন বাঁচাবে লক্ষ প্রাণ’। বৈশ্বিক মহামারী করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে এ বছর বাঘ দিবসের অনুষ্ঠান হচ্ছে না। তবে ভার্চুয়ালি আয়োজন করা হচ্ছে দিবসটির।

এদিকে গত সেপ্টেম্বরে সংসদে এক আলোচনায় পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন বলেছেন, গত ২৪ বছরে ২৪টি বাঘকে গুলি করে ও পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ওই সময়ে ১০টি বাঘের স্বাভাবিক মৃত্যুর তথ্য মিলেছে। সুন্দরবনে এক সময় প্রায় ৪৫০টি বাঘ ছিল। যা ২০১৫ সালে কমে দাঁড়ায় ১০৬টিতে।

সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক আবুল হাসান বলেন, নানামুখী উদ্যোগের ফলে বাঘের সংখ্যা এখন ১১৬টিতে দাঁড়িয়েছে। তবে বাঘের সংখ্যা দিন দিন যে বাড়ছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। বেসরকারি হিসাবে এই সংখ্যা ১৪০ পার হয়েছে।

সাতক্ষীরার সুন্দরবন অঞ্চলে বেসরকারি সংস্থা ‘লিডার্স’-এর পরিচালক মোহন কুমার মন্ডল বেসরকারি জরিপের বরাত দিয়ে সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা ১৪৬ হতে পারে উল্লেখ করে বলেন, বাঘ রক্ষায় সরকারের নানা পদক্ষেপের কারণে বিপুল সংখ্যক বনদস্যু বনের ডাকাতি ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে। বর্তমানে বাঘ আর চোর-শিকারিদের পাল্লায় পড়ছে না। হরিণ শিকারও হ্রাস পেয়েছে লক্ষণীয়ভাবে।

সহকারী বন সংরক্ষক বলেন, হরিণের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। যেখানে সেখানে এখন হরিণের দেখা মিলছে। সুন্দরবনের দোবেকী টহল ক্যাম্পের বনকর্মী রিপন জানান, বনে বাঘ, হরিণ এবং শূকরের সংখ্যাও আশানুরূপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। পশ্চিম সুন্দরবনের সাতক্ষীরা রেঞ্জে পশুটির আনাগোনা লক্ষ করা যাচ্ছে। নদীর চরে ও খালের ধারে বাঘের পায়ের ছাপও মিলছে।

কোথাও বাঘের ডাকও শোনা যাচ্ছে। বন কর্মীরা জানান, কয়েক বছরের ব্যবধানে জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত বাঘের কবলে চারজন নিহত এবং একজন আহত হওয়া ছাড়াও বাঘের খাল পারাপার পশুটির সংখ্যা বৃদ্ধির ইঙ্গিত করে। তাদের ভাষ্য, বনে বাঘ, হরিণ ও শূকরের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। হরিণ ও শূকর বৃদ্ধি পেলে বাঘের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাবে এটাই স্বাভাবিক।

এই ধারা চলতে থাকলে বাঘের সংখ্যা আশানুরূপভাবে আরও বেড়ে যাবে। বাঘের বিচরণক্ষেত্র সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতেও র‌্যাবের বিরাট ভূমিকা রয়েছে। সম্প্রতি ৩২টি জলদস্যু বাহিনীর ৩২৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সুন্দরবনকেন্দ্রিক অপরাধ জিরো টলারেন্সে আনতে র‌্যাবের ভূমিকা ছিল বলতে গেলে একক। র‌্যাবের তৎপরতায় একের পর এক দস্যুবাহিনী সরকারের কাছে আত্মসমর্পণ করে। সুন্দরবন এখন দস্যুমুক্ত।

কথা হয় র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল-মঈনের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে বলেন, এখন সুন্দরবনে সুবাতাস বইছে। র‌্যাব বাঘ এবং বন্যপ্রাণীসহ সুন্দরবন রক্ষা ও বন-জলদস্যু মুক্ত করতে প্রতিশ্রুতিবন্ধ। সুন্দরবনে এখন বাঘ পাচার-হত্যা, অপহরণ নেই বললেই চলে। মাওয়ালী, বাওয়ালী, বনজীবী, বন্যপ্রাণী এখন সবাই নিরাপদ। নির্ভয়ে নির্বিঘ্নে আসছিল দর্শনার্থী-পর্যবেক্ষক, জাহাজ বণিকেরা। তিনি বলেন, যে ৪টি বাঘ হত্যার কথা বলা হচ্ছে, এমন তথ্যটি ঠিক নাও হতে পারে। কারণ বাঘেরও বয়সসীমা রয়েছে। র‌্যাব সুন্দরবন রক্ষা ও বন্যপ্রাণী রক্ষায় সঙ্গে কাজ করছে। নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছে।

বন সংরক্ষক বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ সার্কেল প্রধান মোল্যা রেজাউল করিম বলেন, বাঘ হত্যা শূন্যের কোঠায় আনতে র‌্যাবসহ বিভিন্ন বাহিনীর সঙ্গে আমরাও কাজ করছি। বাঘের সংখ্যা বাড়ছে-এটা ধরে রাখতে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। তবে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে আমাদের কোনো লোকবলই নেই। লোকবল জরুরি।

বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট বলছে, ২০১৯ সালে একটি ২০২০ সালে ২টি এবং ২০২১ সালে ১টি বাঘ হত্যা করা হয়েছে। তবে আশার কথা হচ্ছে-বাঘ রক্ষায় সাধারণ মানুষ, সরকার, বিভিন্ন সংস্থা নানা উদ্যোগ নিচ্ছেন। সব সংস্থার উদ্যোগের কারণে-বাঘের সংখ্যা বাড়ছে। ২০১৮ সালের সর্বশেষ জরিপ অনুযায়ী দেশে বর্তমানে ১১৪টি বাঘ রয়েছে। এর আগে ১০৬টি বাঘ ছিল।

কথা হয় বাঘ গবেষক ড. মনিরুল এইচ খানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ৪টি বাঘ হত্যা করা হয়েছে-অপরদিকে বাঘের সংখ্যা বাড়ছে। সংখ্যা বাড়বে এটাই প্রত্যাশা, কিন্তু হত্যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। পার্বত্য চট্টগ্রামের কিছু বাঘ রয়েছে এগুলো রক্ষায় বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তিনি র‌্যাবের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, বাঘসহ বন্যপ্রাণী রক্ষায় র‌্যাব আরও সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে। বাঘ মানুষকে ক্ষতি করে না বরং মানুষই বাঘের ক্ষতি করে। হত্যা করে, পাচার করে। অপরাধীরা বাঘের শত্রু হয়ে উঠেছে। বাঘ অপরাধীদের দেখলে পালানোর পথ পায় না।

বন্যপ্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের পরিচালক এএসএম জহির উদ্দিন আকন বলেন, পন্যপ্রাণী হত্যা-পাচার কমে এসেছে। চলতি বছরের মার্চে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ২ বিদেশির কাছ থেকে বাঘের হাড় উদ্ধার করা হয়। ৪টি বাঘ হত্যার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা তথ্যগুলো পর্যালোচনা করে সিআইডির কাছে হস্তান্তর করেছি। সিআইডি জানিয়েছে ৪টি বাঘ বিষক্রিয়ায় মারা যায়নি। তবে বাঘগুলোকে কীভাবে হত্যা করা হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তিনি বলেন, আমরা মাঠে রয়েছি। সংবাদ পেলেই ছুটছি। বাঘসহ বন্যপ্রাণী রক্ষায় সাধারণ মানুষকেও সোচ্চার হতে হবে। বন্যপ্রাণী হত্যা, ক্রয়-বিক্রয়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে।

খুলনা ব্যুরো জানায়, বন বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, স্বাধীনতার পর ১৯৭৫ সালের জরিপে সুন্দরবনে বাঘ ছিল ৩৫০টি। ১৯৮২ সালের জরিপে দেখা যায় বাঘের সংখ্যা ৪২৫টি। ১৯৮৪ সালে সুন্দরবনের ১১০ বর্গকিলোমিটার এলাকায় জরিপ চালিয়ে ৪৩০ থেকে ৪৫০টি বাঘ থাকার কথা জানানো হয়। ২০০৪ সালে জরিপে বাঘের সংখ্যা ছিল ৪৪০টি।

তবে ২০১৫ সালের জরিপে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে বাঘের সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমে দাঁড়ায় ১০৬টিতে। তথ্য বলছে, ২০০১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ৫০টি বাঘের মৃত্যু হয়েছে। স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে মাত্র ১০টির। সুন্দরবন পশ্চিম বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) ড. আবু নাসের মোহসীন হোসেন বলেন, বাঘের প্রজনন, বংশবৃদ্ধিসহ অবাধ চলাচলের জন্য গোটা সুন্দরবনের অর্ধেকেরও বেশি এলাকাকে সংরক্ষিত বন হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে বাঘ সেখানে আশ্রয় নিতে পারে। বন্য ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগীয় কর্মকর্তা নির্মল কুমার পাল জানান, চোরা-শিকারিদের তৎপরতা বন্ধে আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর স্মার্ট পেট্রোলিং চালু করা হয়েছে।

সুন্দরবন খুলনা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মো. আবু সালেহ বলেন, বর্তমান সরকার বাঘের সংখ্যা বাড়াতে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। এরই অংশ হিসেবে সুন্দরবন দস্যুমুক্ত করা হয়েছে। যার সুফল কিন্তু দেখা যাচ্ছে। বিগত তিন বছরে বাঘের সংখ্যা বেড়েছে। বন বিভাগ বাঘ সুরক্ষায় যেভাবে কাজ করছে সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা দিন দিন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সংবাদচিত্র/জাতীয়

শেয়ার করুনঃ

নতুন পদ্ধতিতে সহজেই যেভাবে জন্মনিবন্ধন করবেন

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৭:১৩

ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৭:০৭

সেভ দ্য রোড মহাসচিবের ভোজায়োজন

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৬:৫৫

জাতীয় প্রেস ক্লাবে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৬:৪১

নিম্নচাপের প্রভাবে তীব্র ঢেউয়ে ভাঙছে কক্সবাজারের সৈকত

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৬:১০

উত্তরায় বিস্ফোরণ: একে একে ৮ জনেরই মৃত্যু

১৩ আগস্ট, ২০২২, ৫:৪৫

কাতার বিশ্বকাপ: ফাইনাল ম্যাচের ভেন্যু উদ্বোধন

১২ আগস্ট, ২০২২, ৭:৩৩

বেবি পাউডার বিক্রি বন্ধ করছে জনসন

১২ আগস্ট, ২০২২, ৩:৩৪

ধলেশ্বরীতে ২১ যাত্রীসহ ট্রলার ডুবি

১২ আগস্ট, ২০২২, ৩:২৫

একদিন এগিয়ে কাতার বিশ্বকাপের সূচি

১২ আগস্ট, ২০২২, ৩:২১

বিয়ের প্রলোভনে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেফতার

৮ মে, ২০২১, ৪:৫৩

চেলসির সঙ্গে ড্র, ফাইনালের পথ কঠিন হলো রিয়ালের

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫৩

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে দিল্লিকে হারিয়ে শীর্ষে কোহলিরা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫১

আরও ২/৩ দিন হাসপাতালে থাকতে হবে খালেদা জিয়াকে

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৩

খাদ্যের সঙ্গে পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতেও কাজ হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

২২ মে, ২০২১, ১০:০৭

ওবায়দুল কাদের আপনি রেহাই পাবেন না: কাদের মির্জা

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩৩

নিম একটি শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধের উৎস

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৩২

ফের পিএসএলে সাকিব-মাহমুদউল্লাহ, দল পেলেন লিটনও

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৫২

অর্থকষ্টে পড়েই মহামারীর মধ্যে শুটিং করেছেন শ্রুতি!

১১ মে, ২০২১, ৮:০০

রাজধানীর নবাবগঞ্জে বাস ডিপোতে আগুন

২৮ এপ্রিল, ২০২১, ৬:৪৫


উপরে